Life Style News

11 months ago

Jeera Water: জলের সাথে এই মশলা মিশিয়ে পান করলেই ঘটবে রোগমুক্তি মিলবে মেদবিহীন শরীর!

Jeera Water (Symbolic Water)
Jeera Water (Symbolic Water)

 

দুরন্ত বার্তা ডিজিটাল ডেস্কঃ মেদযুক্ত শরীর থাকলে ঘটতে পারে হাজারো সমস্যা। সেই তালিকায় রয়েছে ডায়াবিটিস, হাই প্রেশার, কোলেস্টেরল ও থাইরয়েডের মতো একাধিক জটিল অসুখ। এমনকি ওজন বেশি থাকলে কোলোন ক্যানসারে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকিও বাড়ে বলে জানাচ্ছে কয়েকটি গবেষণা। তাই ওজন কমাতে জলের সাথে মিশাতে পারেন এই বিশেষ মশলা কি সেই মশলা? 

 আপনাদের ওজন বাড়ার সমস্যা থেকে মুক্তি দেবে জিরে জল। প্রতিদিন এই জল খেলেই ওজন কমে দ্রুত গতিতে। এমনকী পেটের সমস্যা দূর করতেও পারে জিরে ভেজানো জল। তাই রোজ সকালে জিরে জল খাওয়া চালু করে দিন।

কিভাবে আপনাকে সুস্থ রাখবে এটি? 

১. বিপাকের হার বাড়ায় জিরে জল​

জিরে জল অত্যন্ত উপকারী এক পানীয়। এতে রয়েছে ভিটামিন, খনিজ ও অ্যান্টিঅক্সিডেন্টের ভাণ্ডার। এমনকী এতে আছে এমন কিছু উপাদান যা দেহে বিপাকের গতিকে ত্বরান্বিত করে। ফলে শরীরে জমে থাকা অত্যধিক মেদ দ্রুত ঝরে যায়। এমনকী বিপাকীয় নানা সমস্যা, যেমন- ডায়াবিটিস, প্রেশার ও কোলেস্টেরলের মতো একাধিক অসুখ নিয়ন্ত্রণে চলে আসে জিরে ভেজানো জলের গুণে। তাই সুস্থ থাকতে এই জল নিয়মিত পান করা জরুরি।

২. পেটের মেদ কমাবে 

সারা শরীরের তুলনায় পেটের মেদ বেশি ক্ষতিকর। বিশেষজ্ঞদের কথায়, পেটের অন্দরে একাধিক অঙ্গ রয়েছে। এক্ষেত্রে ভুঁড়ি থাকলে পেটের ভিতরের এই অঙ্গগুলির উপরও মেদের আস্তরণ পড়ে। এই কারণে অঙ্গগুলি ঠিকমতো কাজ করতে পারে না। এছাড়া ভুঁড়ির মারপ্যাঁচে দেহে হরমোনের ভারসাম্য পর্যন্ত বিগড়ে যেতে পারে। তাই পেটের মেদ কমানোর পক্ষেই সওয়াল করছেন বিশেষজ্ঞরা। আর এই কাজে আপনাকে সাহায্য করতে পারে এক গ্লাস জিরে জল।

৩. কী ভাবে বানাবেন?

জিরে জলের প্রস্তুতি কোনও রকেট সায়েন্স নয়। শিখিয়ে দিলে ছোট ছোট ছেলেমেয়েরাও খুব সহজে জিরে জল বানিয়ে ফেলতে পারে। এই প্রসঙ্গে টাইমস অব ইন্ডিয়ার একটি প্রতিবেদন জানাচ্ছে, এক গ্লাস জলে এক চামচ জিরে সারারাত ভিজিয়ে রাখুন। সকালে উঠে সেই জল ফুটিয়ে নিন। তারপর ছেঁকে পান করতে হবে। এইটুকু করতে পারলেই দেখবেন অনায়াসে ওজন কমছে। তবে ইচ্ছে হলে, ভিজিয়ে রাখা জিরে জল না ফুটিয়েও খেতে পারেন। এতেও উপকার মিলবে।

জিরে জল অত্যন্ত উপকারী। তাই দিনের যে কোনও সময়ই এই জল আপনি পান করতে পারেন। তবে সারাদিনের মধ্যে সকালবেলায় খালি পেটে এই জলপান করতে পারলে সবথেকে বেশি উপকার মেলে। খালি পেটে খেলে এতে থাকা উপকারী উপাদান দেহে দ্রুত গৃহীত হয়। এরপর তা শীঘ্রই নিজের কাজ শুরু করে দিতে পারে। ফলে ওজন কমার সম্ভবনা কয়েকগুণ বাড়ে। এক্ষেত্রে পরপর ৩০ দিন সকালে উঠে জিরে জল খেয়ে দেখুন, ফল পাবেন হাতেনাতে।

You might also like!