রাজ্য

Sundarban : মাছ বিক্রি করে লাখপতি হলেন সুন্দরবনের এক মৎস্যজীবি

উজ্জ্বল বন্দ্যোপাধ্যায়,ক্যানিং : কপাল ফিরে গেল সুন্দরবনের এক মৎস্যজীবির।শেষ পর্যন্তএকটি মাছের দাম ওঠে কেজি প্রতি প্রায় ৪৯,৩০০ টাকা। মাছটি কিনে নেন কলকাতার কেএমপি নামের এক প্রতিষ্ঠানl মৎস্যজীবী বিকাশ বর্মন দীর্ঘদিন ধরে সুন্দরবনের নদীতে মাছ ধরে জীবিকা নির্বাহ করেন।

প্রত্যন্ত সুন্দরবনের নদীতে এবার মিললো পেল্লাই মাপের তেলেভোলা।৭৮ কেজি ৪০০ গ্রাম ওজনের এই মাছটি প্রত্যন্ত সুন্দরবনের গোসাবার কপূরা নদীতে ধরা পড়ে একদল মৎস্যজীবীদের জালে।

মাছটিকে আনা হয় ক্যানিং মাছ বাজারের মাছের আড়তে।  মাছটি ৪৯,৩০০ টাকা প্রতি কেজি দরে বিক্রি হয় সাড়ে ৩৬ লক্ষ টাকায়। সুন্দরবনের গোসাবা ব্লকের দুলকির সোনাগাঁও গ্রাম থেকে বিকাশ বর্মন, রাহুল বর্মন, সৈকত বর্মন, কমলেশ বর্মন ও কালিপদ বর নামে পাঁচ জন মৎস্য জীবীর  জালে ধরা পড়ে প্রায় ৭ ফুট লম্বা দৈত্যাকার তেলেভোলা মাছটি।মাছটি বিক্রি করার জন্য  ক্যানিংয়ের প্রভাত মন্ডলের মাছের আড়তে আনা হয়।আড়তে আনার পর থেকে মাছটির দর উঠতে থাকে।শেষ পর্যন্ত মাছটির দাম ওঠে প্রতি কেজি প্রায় ৪৯,৩০০ টাকা।মাছটি কিনে নেন কলকাতার কেএমপি নামের এক প্রতিষ্ঠানl মৎস্য জীবী বিকাশ বর্মন দীর্ঘদিন ধরে সুন্দরবনের নদীতে মাছ ধরে জীবিকা নির্বাহ করেন। প্রতিবছর মূলত ভোলা মাছ ধরতে যান তিনি। তবে এত বড় ভোলা মাছ এর আগে কখনও ধরা পড়েনি।এই মাছটি এত দাম হওয়ার কারণ, পেটে থাকা পটকা দিয়ে বিভিন্ন ধরনের ওষুধ, জিনিসপত্র তৈরি হয়।যা অস্ত্রোপচারের পর সেলাইয়ের কাজে ব্যবহার করা হয় বলে জানা গিয়েছে।