রাজ্য

হরতালে ট্রেন পরিষেবা বিঘ্নিত নানা স্থানে



কলকাতা, ১২ ফেব্রুয়ারি   :  বামেদের ডাকা ১২ ঘন্টার হরতালে ট্রেন চলাচল ব্যাহত হয়। 

শুক্রবার শিয়ালদহ শাখার বিভিন্ন স্টেশনে হরতালের জেরে থমকে যায় ট্রেন চলাচল। শিয়ালদহ দক্ষিণ শাখার ডায়মন্ড হারবারে রেললাইনে ওভারহেড তারে কলাপাতা ফেলে বন্‌ধ সমর্থনকারীরা। এদিন সকাল সাড়ে ৭টা নাগাদ ঘটনাটি ঘটে দেউলা ও সংগ্রামপুর স্টেশনের মাঝে। বিভিন্ন স্টেশনে দাঁড়িয়ে পড়ে একাধিক ট্রেন। 

শিয়ালদহ দক্ষিণ শাখার হোটরেও চলে হরতাল সমর্থনকারীদের অবরোধ। শিয়ালদহ–বনগাঁ শাখার বামনগাছি, গুমা, বিড়া স্টেশন ও অশোকনগরে তিন নম্বর গেটে দফায় দফায় চলে অবরোধ। কাঁচরাপাড়ায় রেল অবরোধের জেরে আটকে পড়ে একাধিক ট্রেন।

হাওড়া ট্রেন চলাচল মোটের ওপর স্বাভাবিক থাকলেও ডোমজুড়ে ট্রেনলাইনে গাছের গুড়ি ফেলার খবর পাওয়া গিয়েছে। এর জেরে আটকে পড়ে ডাউন হাওড়া–আমতা লোকাল। তবে স্বাভাবিক হাওড়া স্টেশন, রয়েছে পর্যাপ্ত ট্যাক্সি। হাওড়া ব্রিজ ও হাওড়া বাসস্ট্যান্ডেও যানবাহন চলাচল, মানুষের ব্যস্ততা স্বাভাবিক রয়েছে। হাওড়ায় শহরের দিকে না পড়লে গ্রামাঞ্চলে পড়েছে বন্‌ধের প্রভাব। সালকিয়া থেকে বড় মিছিল বার হয়।

এদিকে, রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে অনেকেই রাস্তায় নেমে হয়রানির শিকার হচ্ছেন। বহরমপুরে রাস্তায় নামেনি বেসরকারি বাস। তবে সরকারি বাস চলাচল করছে। ক্যানিং হাসপাতাল মোড়ে ক্যারম খেলেন হরতাল সমর্থকরা। আর তার জেরে অবরুদ্ধ হয়ে পড়ে ক্যানিং–বারুইপুর রোড। ক্যানিংয়ে বাম–কংগ্রেসের মিছিলে উঠল ‘‌খেলা হবে’‌ স্লোগান। তবে ব্যারাকপুর শিল্পাঞ্চলে কারখানা খোলা। সকাল থেকে খোলা প্রায় সমস্ত জুটমিল। হাজিরাও স্বাভাবিক। উত্তরপাড়ায় জিটি রোডের ওপর ফুটবল খেলেন বন্‌ধ সমর্থকরা। পুলিশকে চকোলেটও দিয়েছেন তাঁরা।