কলকাতা

Shuvendu Adhikari : শুভেন্দুকে গ্রেফতারের দাবিতে পথে নামছে তৃণমূল, রাজ্যপালের কাছেও যাচ্ছেন ব্রাত্যরা

কলকাতা, ২৫ জুন : দুর্নীতির অভিযোগে বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারীকে গ্রেফতার করতে হবে। এমন দাবি তুলে বড়সড় আন্দোলনে নামছে পশ্চিমবঙ্গের শাসকদল তৃণমূল। শনিবার সর্বভারতীয় তৃণমূলের তরফে জানানো হয়েছে, সোমবার বিকেল তিনটি জায়গায় একযোগে বিরোধী দলনেতার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবিতে সরব হবেন তৃণমূল নেতারা। তাঁর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি নিয়ে মঙ্গলবার শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসু-সহ শাসকদলের আট জন প্রতিনিধি যাবেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনকরের কাছে। সারদা-নারদা কাণ্ডে শুভেন্দু অধিকারীকে গ্রেফতার করার দাবিতে আন্দোলনে নামছে তৃণমূল। শনিবার সাংবাদিক বৈঠকে এই কথা জানালেন তৃণমূলের মুখপাত্র কুণাল ঘোষ। আগামী ২৭ জুন, সোমবার শুভেন্দুকে গ্রেফতারের দাবিতে একাধিক কর্মসূচি রেখেছে তৃণমূল। ওই দিন বিরোধী দলনেতাকে গ্রেফতারের দাবিতে সল্টলেকের সিজিও কমপ্লেক্সের সামনে যুব তৃণমূল সভা করবে। সেখানে উপস্থিত থাকবেন পশ্চিমবঙ্গ যুব তৃণমূল সভানেত্রী সায়নী ঘোষ, বালিগঞ্জের বিধায়ক বাবুল সুপ্রিয়, তৃণমূল ছাত্র পরিষদের রাজ্য সভাপতি তৃণাঙ্কুর ভট্টাচার্য এবং তৃণমূল কংগ্রেসের মুখপাত্র কুণাল ঘোষ। ওই একই দিনে তিনটি কর্মসূচি রাখা হয়েছে। দ্বিতীয় কর্মসূচি হবে হলদিয়াতে। শুভেন্দুর রাজনৈতিক জীবনে পূর্ব মেদিনীপুরের হলদিয়া শিল্পাঞ্চলের বিশেষ গুরুত্ব রয়েছে। দুপুর ৩টেয় হলদিয়ার দুর্গাচক মোড়ে বিক্ষোভ মিছিল এবং জনসভার আয়োজন করা হয়েছে। সেই সভায় বক্তা থাকবেন পঞ্চায়েত প্রতিমন্ত্রী শিউলি সাহা, জলসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রী মানস ভুঁইয়া ও প্রাক্তন মন্ত্রী রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়। একই সময় ওই দিন সভা হবে শুভেন্দুর এলাকা কাঁথিতে। সেখানে বিক্ষোভ মিছিল এবং সভা করা হবে। নেতৃত্ব দেবেন অখিল গিরি। আরও একটি বিক্ষোভ সমাবেশ হবে বিরোধী দলনেতার বাড়ির কাছেই। কাঁথিতে আয়োজিত সেই বিক্ষোভ সমাবেশে হাজির থাকবেন মৎস্য মন্ত্রী তথা রামনগরের বিধায়ক অখিল গিরি। সোমবার একাধিক মিছিল এবং সভা করার পর মঙ্গলবার একই দাবিতে রাজ্যপাল জগদীপ ধনকরের কাছে দরবার করবেন তৃণমূলের আট জনের এক প্রতিনিধিদল। ওই দলের নেতৃত্ব দেবেন শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসু। পরপর দু’বার চিঠি দিয়ে বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারীর বিরুদ্ধে ব্ল্যাকমেলিং এবং জোর করে টাকা নেওয়ার অভিযোগ করেছেন সারদা কর্তা সুদীপ্ত সেন। তাঁর অভিযোগ, শুভেন্দু তাঁকে ব্ল্যাকমেল করেছেন। জোর করে টাকা নিয়েছেন। নিজের স্বার্থ পূরণ করেছেন। সেবি-র মতো সংস্থার হাত থেকে বাঁচানোর নাম করে শুভেন্দু টাকা নিয়েছেন। সারদা কর্তার এই অভিযোগকে হাতিয়ার করে শুক্রবারই বিরোধী দলনেতার বিরুদ্ধে আক্রমণ আক্রমণ করেছে তৃণমূল। কুণালের অভিযোগ, এত সবের পরও শুভেন্দুকে ‘মদত’ দিচ্ছেন রাজ্যপাল।এমনকি রাজভবনে শুভেন্দুকে পাশে দাঁড় করিয়ে রাজ্যপাল জগদীপ ধনকর সাংবাদিক বৈঠক করছেন। তিনি বিজেপির দালালের ভূমিকা নিয়েছেন। কুণালের প্রশ্ন নারদা কাণ্ডে শুভেন্দুকে হাত পেতে টাকা নিতে দেখা গিয়েছে। এরপরেও কেন সিবিআই বা ইডি তাঁকে গ্রেফতার করবে না? শুক্রবার বিধাননগরের এমপি-এমএলএ কোর্টে হাজিরা দিতে এসেছিলেন সারদা-কর্তা সুদীপ্ত সেন। হাজিরা শেষে আদালত থেকে বেরোনোর সময় সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে তিনি যা বলেছেন, সাংবাদিক বৈঠকে তার ভিডিয়ো তুলে ধরে রাজ্যের বিরোধী দলনেতার গ্রেফতারির দাবি জানায় শাসকদল। তৃণমূলের দাবি, আদালতে চিঠি দিয়ে সুদীপ্ত জানিয়েছেন, তাঁকে ‘ব্ল্যাকমেল’ করে টাকা নিতেন শুভেন্দু। শনিবার প্রকাশিত তৃণমূলের কর্মসূচিতে সরাসরি সারদা কাণ্ডের নাম বলা হয়নি। শুধু বলা হয়েছে, শুভেন্দুর দুর্নীতির বিরুদ্ধে ব্যবস্থার দাবিতে তাঁরা রাস্তায় নামবেন। মমতা ও সুদীপ্তর অভিযোগকে হাতিয়ার করেই নন্দীগ্রাম বিধায়কের বিরুদ্ধে সুর চড়াবেন তৃণমূল নেতারা। প্রসঙ্গত, বিধানসভার সদ্যসমাপ্ত বাদল অধিবেশনে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তাঁর বক্তৃতায় বিরোধী দলনেতার বিরুদ্ধে একাধিক দুর্নীতির অভিযোগ এনেছিলেন। তবে তাঁর বিরুদ্ধে শাসকদলের তোলা দুর্নীতির অভিযোগ কিংবা রাজ্যপালের কাছে নালিশ জানাতে যাওয়া নিয়ে কোনও মন্তব্য করতে চাননি বিরোধী দলনেতা।